June 27, 2022

Knight TV

fight for justice

বিশ্বের সবচেয়ে উত্তরের দ্বীপ আবিষ্কার।

‘সৌভাগ্যক্রমে’ বিশ্বের সবচেয়ে উত্তরের দ্বীপ আবিষ্কার করে ফেলেছেন বলে দাবি করছেন একদল বিজ্ঞানী। ৬০ মিটার দৈর্ঘ্য ও ৩০ মিটার প্রস্থবিশিষ্ট দ্বীপটি গ্রীনল্যান্ডের সবচেয়ে উত্তরদিকের সমুদ্র উপকূলে অবস্থিত। অর্থাৎ এটিই উত্তর মেরুর সবচেয়ে কাছের ভূখন্ড।

গত জুলাইয়ে, বিজ্ঞানীদের দলটি কিছু নমুনা সংগ্রহ করতে ওই অঞ্চলে যান। তবে তারা ভাবেন এটিকে ১৯৭৮ সাল থেকে পরিচিত ওডাক দ্বীপ ভাবেন। কিন্তু ডেনিশ কর্মকর্তারা তাদের অবস্থান পরীক্ষা করে তারা বুঝতে পারেন, তারা সেখান থেকে ৮০০ মিটার (২৬২৫ ফুট) দূরে রয়েছেন।

গ্রীনল্যান্ডের সুবিশাল এই আর্কটিক অঞ্চলটি ডেনমার্কের অন্তর্গত। নতুন আবিষ্কৃত দ্বীপটি একটি ডেনিশ-সুইস যৌথ গবেষণা চালানোর সময় আবিষ্কৃত হয় বলে সংবাদমাধ্যম বিবিসিকে জানান গবেষণাটির সমন্বয়কারী ও ইউনিভার্সিটি অফ কোপেনহেগেন-এর গবেষক মরটেন র‍্যাশ।

গবেষণাটি নিয়ে তিনি জানান, “আমরা ছোট একটি হেলিকপ্টারে ৬ জন ওডাক দ্বীপে গিয়েছিলাম। এটিই উত্তর মেরুর সবচেয়ে কাছের দ্বীপ বলে পরিচিত ছিলো। প্রাকৃতিক বিরূপ আবহাওয়ায় সেখানকার প্রাণীরা কীভাবে বেঁচে থাকে এটি জানার জন্য আমরা ওখান থেকে কিছু নমুনা নিতে চেয়েছিলাম। “

“কিন্তু এই এলাকার মানচিত্র খুব বেশি পরিষ্কার নয়। ফলে হেলিকপ্টার থেকে নেমে আমরা জায়গাটি খুঁজে বের করার চেষ্টা করি। অবশেষে আমরা চারপাশে বরফে আচ্ছাদিত এই দ্বীপটি খুঁজে পাই, আর এখানের পরিবেশ মোটেও বন্ধুসুলভ ছিলো না। পরবর্তীতে বিশেষজ্ঞদের নিয়ে গবেষণার পর আমরা বুঝতে পারি আমরা সৌভাগ্যক্রমে বিশ্বের সবচেয়ে উত্তরের দ্বীপ আবিষ্কার করে ফেলেছি। “
তবে বিজ্ঞানের দৃষ্টিকোণ থেকে এটি কোন বড় ঘটনা নয় বলেও জানিয়ে তিনি বলেন, “কিন্তু ব্যক্তিগত দৃষ্টিকোণ থেকে এটি অবশ্যই বড় একটি বিষয়। কর্দমাক্ত বুট পায়ে পৃথিবীর সবচেয়ে উত্তরের দ্বীপ আবিষ্কার করার ছয়জনের একজন হওয়া বেশ মজার। “
বিজ্ঞানীরা নতুন আবিষ্কৃত এই দ্বীপটির নাম দিতে চান ‘Qeqertaq Avannarleq’, গ্রীনল্যান্ডের ভাষায় যার অর্থ ‘সবচেয়ে উত্তরের দ্বীপ’।