June 26, 2022

Knight TV

fight for justice

বন্ধুদের কাছাকাছি থাকলে স্বাস্থ্য ঝুঁকি হ্রাস পায়

নিঃসঙ্গতা উচ্চ রক্তচাপ, হৃদরোগ এবং এমনকি ক্যান্সারে মতো স্বাস্থ্য সমস্যার কারণ হতে পারে। তাই জীবনধারা পরিবর্তন করতে প্রয়োজন বন্ধুত্ব। যা আপনার শারীরিক সুস্থতার উপর সরাসরি প্রভাব ফেলতে পারে। উদাহরণস্বরূপ, আপনার বন্ধুরা আপনাকে সঠিক পথ চলতে সহায়তা করে। পরিমিত পুষ্টিকর খাওয়াদাওয়া এবং ব্যায়ামের মাধ্যমে শরীর সুস্থ রাখার লক্ষ্য নির্ধারণ এবং তা বজায় রাখতেও সাহায্য করতে পারে।

বন্ধুদের সাথে আনন্দময় সময় কাটালে মানসিক চাপও কমে যায়। হার্ভার্ড মেডিকেল স্কুলের মতে, বন্ধুত্বপূর্ন সম্পর্ক মানসিক চাপের মাত্রা উপশম করতে সাহায্য করে। বন্ধুরা আপনাকে মানসিক চাপের পরিস্থিতি মোকাবেলায়ও সাহায্য করতে পারে। একটি ছোট্ট গবেষণায় দেখা গেছে, শিশুরা যখন মানসিক চাপের সময় তাদের বন্ধুদের সাথে সময় কাটায়, তখন তারা কম কর্টিসল উৎপন্ন করে। কর্টিসল একটি হরমোন যা শরীর থেকে নিঃসৃত হয়, যখন শরীর মানসিক চাপের মধ্যে থাকে।

বন্ধুদের কাছাকাছি থাকলে, ডায়াবেটিস, হার্ট অ্যাটাক এবং স্ট্রোকের মতো স্বাস্থ্য ঝুঁকি হ্রাস পায়। পাশপাশি একাকিত্বের অনুভূতি হ্রাস করতে পারে বন্ধুত্ব। যা আপনার দীর্ঘায়ুতে গুরুত্বপূর্ন প্রভাব রাখে। ২০১০ সালের একটি গবেষণা বলছে, বন্ধুত্বপূর্ন সম্পর্ক অকাল মৃত্যুর ঝুঁকি কমায় প্রায় অর্ধেক।