June 26, 2022

Knight TV

fight for justice

ত্যাগের ঈদ !!!

জিলহজ মাসের চাঁদ দেখার ভিত্তিতে আগে থেকেই ঈদুল আজহার দিনটি নির্ধারিত থাকে। ঈদুল আজহা আমাদের দেশে সাধারণত ‘কোরবানির ঈদ’ নামেই পরিচিত। জিলহজ মাসের ১০ তারিখে মহান আল্লাহর উদ্দেশে পশু কোরবানির মধ্য দিয়ে এই ঈদ উদ্‌যাপিত হবে। তবে ঈদের পরের দুই দিন, অর্থাৎ ১১ ও ১২ জিলহজেও কোরবানি করার বিধান রয়েছে।

করোনা সংক্রমণের কারণে এবারও গতবারের মতো সীমিতসংখ্যক হজযাত্রী নিয়ে পবিত্র হজ সম্পন্ন হয়েছে। মঙ্গলবার সৌদি আরবসহ বিভিন্ন দেশে ঈদ উদ্‌যাপিত হয়েছে।

ঈদুল আজহা উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পৃথক বাণী দিয়েছেন। রাষ্ট্রপতি তাঁর বাণীতে সরকার নির্ধারিত স্থানে কোরবানি করে এবং কোরবানির বর্জ্য যথাস্থানে ফেলে পরিবেশদূষণ বন্ধে সবাই সচেষ্ট থাকবেন বলে আশা প্রকাশ করেন।

বাংলাদেশসহ অনেক দেশে মুসলিমদের অন্যতম প্রধান এই ধর্মীয় উৎসব উদ্‌যাপিত হতে যাচ্ছে চলমান অতিমারির মতো এক বিরুদ্ধ পরিবেশে। সংগত কারণেই এবারও ঈদে আনন্দের স্বাভাবিক উচ্ছ্বাসটা কম।

লোভ, হিংসা ত্যাগ করে, নিজের ভেতরের পশুত্বকে কোরবানি করার ভেতর দিয়ে মহান আল্লাহর সন্তুষ্টি লাভের চেষ্টা করাই এই ঈদের মূল তাৎপর্য। হজরত ইব্রাহিম (আ.) যেমন করে মহান আল্লাহর নির্দেশে তাঁর সন্তুষ্টি লাভের জন্য পুত্র হজরত ইসমাইল (আ.)-কে কোরবানি করতে উদ্যত হয়েছিলেন, সেই ত্যাগকে স্মরণ করে বিশ্বের মুসলিম সম্প্রদায় আল্লাহর সন্তুষ্টি অর্জনে পশু কোরবানি করবে।

করোনাকালে আবার এসেছে পবিত্র ঈদুল আজহা।

করোনার কারণে অবশ্য গত বছর থেকে কোনো ঈদেই ঈদগাহে জামাত অনুষ্ঠিত হচ্ছে না। এবারও স্বাস্থ্যবিধি মেনে নির্দিষ্ট দূরত্ব বজায় রেখে মসজিদেই ঈদের জামাত আদায় করতে হবে বলে সরকারিভাবে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে।

ঈদুল আজহায় কোরবানির পশু কেনা নিয়েই ঘরে ঘরে চলতে থাকে আলাপ-আলোচনা আর প্রস্তুতির পালা। নিজের পালন করা সবচেয়ে ভালো পশুটি কোরবানি করাই উত্তম। তবে বাস্তবতার কারণে এখন সবার পক্ষে পশু পালন করা সম্ভব হয় না।

সে কারণে পশু কিনতে হয়। কোরবানিদাতারা সাধারণত দু-এক দিন আগে থেকে পশু কিনে বাড়িতে এনে লালন-পালন, যত্ন-আত্তি করে থাকেন। তবে নগরের মানুষ ঈদের আগের দিন পশু কেনেন। এবারের ঈদেও এর ব্যক্তিক্রম হয়নি। মঙ্গলবার মধ্যরাত পর্যন্ত চলেছে পশু কেনাবেচা। আজও অনেকেই পশু কিনবেন। বাড়ির ছোটরা আনন্দে মেতে ওঠে পশুর পরিচর্যায়। শহরে গবাদিপশুর বিপুল সমাবেশ, তাদের হাঁকডাক, খড়বিচালি, কাঁঠালপাতা, কাঁচা ঘাস নিয়ে মানুষজনের ছোটাছুটি—এসবের মধ্য দিয়ে কোরবানির সপ্তাহখানেক আগে থেকেই নাগরিক পরিবেশে বেশ অন্য রকম আবহ সৃষ্টি হয়।