June 26, 2022

Knight TV

fight for justice

টিকার জন্য ঘুরছেন শারীরিক প্রতিবন্ধী

গত মঙ্গল ও বুধবার সকাল ছয়টার দিকে টিকা দেওয়ার জন্য জাতীয় পরিচয়পত্র নিয়ে আসেন ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের ৬১ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলরের (দনিয়া) কার্যালয়ের সামনে। এসে দেখেছিলেন মানুষের দীর্ঘ সারি। তাই কয়েক ঘণ্টা অপেক্ষার পর কাগজপত্র জমা না দিয়ে তিনি বাড়ি ফিরে যান। তবে আবদুর রাজ্জাক এরপর আর আগের দুই দিনের মতো ভুল করেননি। গতকাল বুধবার দিবাগত রাত তিনটার সময় তিনি চলে যান কাউন্সিলরের কার্যালয়ের সামনে। তিনি দেখেন, তাঁর সামনে আরও নয়জন জাতীয় পরিচয়পত্র জমা দেওয়ার জন্য কাউন্সিলরের কার্যালয়ের সামনে অপেক্ষা করছেন। রাত তিনটার পর রাজ্জাক দেখতে পান, একে একে মানুষ জড়ো হচ্ছেন কাউন্সিলর কার্যালয়ের সামনে।

আজ বৃহস্পতিবার সকাল সাতটার সময় বলেন, ‘আমি একজন প্রতিবন্ধী মানুষ। টিকা দেওয়ার জন্য তিন দিন ধরে ঘুরতেছি। আজকে তো রাত তিনটা থেকে এখানে এসেছি। কিন্তু টিকা দিতে পারিনি। কবে নাগাদ টিকা দিতে পারব, সেটিও জানি না।’সকাল সাতটার দিকে কাউন্সিলর নিজেই লাইনে দাঁড়িয়ে থাকা সব নারী ও পুরুষের কাছ থেকে জাতীয় পরিচয়পত্র সংগ্রহ করেন। নারীদের উদ্দেশে তিনি বলেন, সবাই যেন দুপুর ১২টার দিকে এখানে আসেন। আর পুরুষেরা যেন আসেন বেলা একটায়। কাউন্সিলরের এমন ঘোষণার পর সবাই বাড়ি ফিরে যান। তবে সকাল নয়টার সময় একদল মানুষকে টিকা দেওয়ার কার্ড দেওয়া হয়, যাঁদের জাতীয় পরিচয়পত্র গতকাল সংগ্রহ করেছিলেন কাউন্সিলর কার্যালয়ের কর্মকর্তারা।

‘আমার ওয়ার্ডে টিকা দেওয়ার কেন্দ্র মাত্র একটি। প্রতিদিন আমরা ৩০০ জনকে টিকা দিতে পারছি। কিন্তু টিকা দেওয়ার জন্য প্রতিদিন এক হাজারের মতো মানুষ এখানে ভিড় করেন। আমরা তো সবাইকে টিকা দিতে পারছি না। অনেকেই রাতের বেলায় এসে লাইনে দাঁড়াচ্ছেন। টিকার সরবরাহ বাড়ালে কিন্তু মানুষ এমন ভোগান্তির মধ্যে পড়তেন না।’