June 27, 2022

Knight TV

fight for justice

জোড়া আত্মঘাতী বিস্ফোরণে শিশুসহ অন্তত ১৩ জনের প্রাণহানি।

পশ্চিমা কয়েকটি দেশের জঙ্গি হামলার আশঙ্কা প্রকাশের কয়েক ঘণ্টা যেতে না যেতে আফগানিস্তানের রাজধানী কাবুলের বিমানবন্দরে জোড়া আত্মঘাতী বিস্ফোরণ ঘটেছে। বৃহস্পতিবারের এই বিস্ফোরণে এখন পর্যন্ত শিশুসহ অন্তত ১৩ জনের প্রাণহানির তথ্য নিশ্চিত করেছে দেশটির নতুন শাসকগোষ্ঠী তালেবান। এদিকে কাবুল বিমানবন্দরের বাইরে ‘আত্মঘাতী’ হামলার ঘটনার তীব্র নিন্দা জানিয়েছে তালেবান।  

তালেবানের মুখপাত্র জাবিহুল্লাহ মুজাহিদিন টুইটারে বলেছেন,  কাবুল বিমানবন্দরে হামলার ঘটনায় ইসলামি আমিরাত তীব্র নিন্দা জানাচ্ছে।   কাবুল বিমানবন্দরে মার্কিন সেনারা ওই ‘আত্মঘাতী’ হামলার স্থানের নিরাপত্তার দায়িত্বে ছিলেন  বলে টুইটারে জানিয়েছেন তিনি।

ইতোমধ্যে বিস্ফোরণের পর ঘটনাস্থলের ভীতিকর পরিস্থিতি বিবরণ সামনে আসছে।

বিবিসির অনলাইন প্রতিবেদন কাবুলে প্রথম বিস্ফোরণের প্রত্যক্ষদর্শী মিলাদ নামের একজন বার্তা সংস্থা এএফপিকে বলেছেন, ভয়াবহ বিস্ফোরণের পর ঘটনাস্থল থেকে মানুষের লাশ, বিচ্ছিন্ন মরদেহ খালে ফেলে দেয়া হচ্ছিল।

অপর এক প্রত্যক্ষদর্শী এএফপিকে বলেছেন, বিস্ফোরণের শব্দতে মারাত্মক আতঙ্কিত হয়ে পড়েন মানুষ। তালেবানরা তখন বিমানবন্দরের গেটে ভীড় জমানো মানুষদের ছত্রভঙ্গ করতে আকাশের দিকে বন্দুক তাক করে গুলি ছুড়তে শুরু করে।

তিনি আরও বলেন, ‘একজনকে আহত শিশু হাতে দৌঁড়াতে দেখলাম। ’ এটা দেখার পরপরই তিনি তার হাতে থাকা নথিপত্র ফেলে ছুটতে শুরু করেন। স্ত্রী ও তিন সন্তানকে নিয়ে আফগানিস্তান ছাড়তে ফ্লাইটে ওঠার জন্য সেসব কাগজ প্রস্তুত করেছিলেন।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কাবুল বিমানবন্দরে বিস্ফোরণের প্রত্যক্ষদর্শী এএফপিকে আরও বলেন, আমি আর দেশত্যাগের জন্য বিমানবন্দরে যাবো না। আমেরিকা, তাদের উদ্ধার কার্যক্রম ও তাদের ভিসার মৃত্যু হোক।